ডেইলি তালাশ
ডেইলি তালাশ এ আপনাদের স্বাগতম। সময়ের সাথে সবার আগে বস্তুনিষ্ঠ সত্য সংবাদ পেতে আমাদের ওয়েভ-সাইট সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।
বাড়ির প্রবেশ পথে টিনের বেড়া দিয়ে চলাচল বন্ধ করে দেওয়ার অভিযোগ প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে

বাড়ির প্রবেশ পথে টিনের বেড়া দিয়ে চলাচল বন্ধ করে দেওয়ার অভিযোগ প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি : গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় বাড়িতে প্রবেশ পথে টিন ও নলকূপের পাশে বাঁশের বেড়া দিয়ে বন্ধ করে দেওয়ার অভিযোগ  প্রতিপক্ষ বিরুদ্ধে । প্রতিপক্ষের ভয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন ওই পরিবারের লোকেরা।এতে বাড়িটির শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে যেতে পারছেনা । এছাড়া একমাত্র গভীর নলকূপের পানি নিতে না পারে পুকুরের পানি পান করতে হচ্ছে তাদের।দুই স্থানের বেড়া খুলে চলাচলের ব্যবস্থা করতে কোটালিপাড়া থানা অভিযোগ ও গোপালগঞ্জ আদালতে মালমাল দায়ের করেন ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা।গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়া উপজেলা কলাবাড়ি  ইউনিয়নের কুমুরিয়া গ্রামের জগদীশ বিশ্বাসের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।ওই গ্রামের নকুল বিশ্বাসের ছেলে রাম বিশ্বাস, শক্তি বিশ্বাস, শ্যামল বিশ্বাস,লক্ষ্মণ বিশ্বাস ও ভরত বিশ্বাসে বিরুদ্ধে এ অভিযোগ ওঠে।সরেজমিনে গিয়ে দেখাযায়,  কুমুরিয়া গ্রামের জগদীশ বিশ্বাসের বাড়িতে প্রবেশের পথে টিন ও বাঁশ দিয়ে বেড়া দিয়ে বন্ধ করে রাখা হয়েছে। ওই  বাড়িতে সাতটি পরিবারের জন্য সরকারি ভাবে একটি গভীর নলকূপ স্থাপন করা হয়েছে। ওই টিউবয়েলের  পাশেও বেড়া দেখা যায়। এতে পানি নিতে পারছেন ভুক্তভোগী পরিবার।ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্য অঞ্জু বিশ্বাস বলেন, এই বাড়িতে আমারা চার পুরুষের বসবাস। ঠাকুদাদার জমির সমান তিন ভাগ করে ভোগ করে আসছি, সবাই এই রাস্তা দিয়ে চলাচল করছি। শুক্রবার বেলা সাড়ে ৯ টার দিকে পুরুষের কাজে গেলে রাম বিশ্বাস তার লোকজন নিয়ে রাস্তায় বেড়া দেয়। আমরা নিষেধ করতে গেলে আমাদের সাবালকত্ব দিয়ে ধেয়ে আসে।  পরে আমরা ওখান থেকে চলে আসি। ওই রাস্তা সরকার থেকে কীে দিয়েছে। আমদের যে জমি দিয়েছিলো তাও তারা দখল করে নিয়েছে অথচ আমরা সব জমির এক তৃতীয়াংশের মালিক।তাছাড়া বাড়িতে একটা মাত্র পানির কল ওই কল থেকে পানি পান করতাম।  সেই পানির কলেরও বেড়া দিয়ে রেখেছে।আমরা বাধ্য হয়ে পুকুরের পানি পান করছি।  আমরা বাধ্য হয়ে পুকুরের পানি পান করছি। তিনি আরো বলেন, তারা আমাদের কোন জায়গা দিতে চায়না দুদিন আগে আমাদের পুকুর দখল করে মাছে চাষ করছে। গতকল আদালতে মামলা করেছি। আমরা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
এবিষয়ে জানতে রাম বিশ্বাসে বাড়িতে গিয়ে তাকে পাওয়ানি,  কথা হয় তার স্ত্রী অঞ্জলী বিশ্বাস ও ভাই  শক্তি বিশ্বাসের সাথে,  তারা বলেন আমাদের সব জমিতে অংশ আছে তাই মাছ ছেড়েছি। তাদের হাটতে দিবো না বলেই রাস্তায় বেড়া দিয়েছি।  শনিবারে থানায় ডেকেছে সেকানে যায় হবার হবে।
কলাবড়ির ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিজন বিশ্বাস বলেন, ওই বাড়িতে গতকাল যখন পুলিশ আসে তখন আমি  বিষয়টা জানতে পারি। শনিবার থানা বিষয়টা নিয়ে বসবে এবং এর মিমাংসা হবে আশা করি।কোটালিপাড়া থানা পরিদর্শক মো. হাসমত উল্লা বলেন,  এবিষটি নিয়ে একটি অভিযোগ হয়েছে।  আমি সেখানে গিয়েছিল তাদের বলে এসেছি বেড়া তুলে নিতে। শনিবার থানায় দুপক্ষকে ডাকা হয়েছে।###

পোস্টটি শেয়ার কারুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিজ্ঞাপনঃ

রাজনীতি

অপরাধ ও দুর্নীতি

© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed By Mak Institute of Design |