ডেইলি তালাশ
ডেইলি তালাশ এ আপনাদের স্বাগতম। সময়ের সাথে সবার আগে বস্তুনিষ্ঠ সত্য সংবাদ পেতে আমাদের ওয়েভ-সাইট সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।
ফলোআপ>সোনামসজিদ বন্দরে ভারতীয় ট্রাক অগ্নিকার ঘটনায় ২টি তদন্ত কমিটি গঠন

ফলোআপ>সোনামসজিদ বন্দরে ভারতীয় ট্রাক অগ্নিকার ঘটনায় ২টি তদন্ত কমিটি গঠন

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি >>> দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম স্থলবন্দর চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার সোনামসজিদ স্থলবন্দরের পানামা পোর্ট লিংক লিমিটেডের অভ্যন্তরে ভারতীয় পণ্যবাহী ট্রাকে অগ্নিকার ঘটনায় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট দেবেন্দ্র নাথ উরাঁও এর নেতৃত্বে ১০জন বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি ও সোনামসজিদ স্থল শুল্ক স্টেশন পক্ষ থেকে অপর একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে এই ২টি তদন্ত কমিটি তাদের তদন্ত কার্যক্রম শুরু করেছেন।

এদিকে, অগ্নিকার ঘটনাকে কেন্দ্র করে স্থলবন্দরে পূর্ব শত্তার জেরে বিচিং পাউডারকে গানপাউডার বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করে গুজব ছড়ানো অভিযোগ উঠেছে। যা ব্যবসায়ী এবং সরকারি রাজস্ব ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে বলেও সোনামসজিদ স্থলবন্দরের একাধিক ব্যবসায়ী এবং সিঅ্যাএফ ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করেন। সেই সাথে বিচিং পাউডার আমদানিকৃত সিঅ্যাএফ ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান জাহাঙ্গীর নগর সিন্ডিকেটের পরিচালকের অভিযোগ তাঁর পিতা সিঅ্যাএফ’র তৎকালিন কোষাধ্যক্ষ ও যুবলীগ নেতা মরহুম মনিরুল হত্যা মামলার অন্যতম সাজাপ্রাপ্ত আসামীর ভাজিতা ইসমাইল হোসেন (যার ফেইসুবক আইডি ইসমাইল সরদার) আমাদেরকে পারিবারিকভাবে হেয়পন্ন করতে ও স্থলবন্দরের ব্যবসাকে ক্ষতি করতে পাউডারকে গানপাউডার বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করে গুজব ছড়িয়েছেন। তবে বন্দর ব্যবহারকারী সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রকৃত ঘটনা না জেনে, না বুঝে এবং কেমিক্যাল ল্যাবে পরীক্ষা না যে ব্যক্তি এই গুজবটি ছড়িয়েছেন তা বর্তমান সরকারের রাজস্ব আহরণ ও বন্দরে ব্যবসায়ভাবে ক্ষতি করতেই মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন তথ্য ফেইসবুক প্রচার করেছেন।


সরজমিনে স্থলবন্দর ব্যবহারকারী সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরের তথ্য নিয়ে জানা গেছে, সোনামসজিদ স্থল শুল্ক স্টেশন, বিজিবি, পানামা, সিঅ্যান্ডএফ ও আমদানিকরকদের যৌথ সমন্বয়ে বিচিং পাউডারের নমুন সংগ্রহ করে বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণাগার রাজশাহীতে পাঠানো হয়েছে। সংগ্রহকৃত নমুনার পরীক্ষার রিপোর্ট আসলে প্রকৃত ঘটনা উদঘাটিত হবে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা।


এদিকে, গত ১৩ জুলাই পানামার ভিতরে এবং গণকবরের পাশে ভারতীয় ২টি পণ্যবাহী ট্রাকে আগুন লাগানোকে কেন্দ্র করে স্থানীয় সংসদ সদস্য, জেলা প্রশাসক, পুলিশসহ প্রশাসনের বিভিন্ন গোয়েন্দা বিভাগের কর্মকর্তাগণ পরিদর্শন করেন। সেই সাথে আগুনের প্রকৃত সূত্রপাত কিভাবে ঘটেছে তা নিশ্চিত করতে জেলা পর্যায়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট দেবেন্দ্র নাথ উরাঁও এর নেতৃত্বে ১০জন বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি করা বলে নিশ্চিত করেছেন শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবুল হায়াত। অন্যদিকে সোনামসজিদ স্থল শুল্ক স্টেশন পক্ষ থেকে অপর একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।


এব্যাপারে পানামা পোর্ট লিংক লিমিডেটের পোর্ট ম্যানেজার মোঃ মাইনুল ইসলাম জানান, গত ১৩ জুলাই বিচিং পাউডার বোঝাই ভারতীয় ২টি ট্রাকে আনুগ লাগানোর ঘটনার আগেও এই বন্দরে বিচিং পাউডার আমদানি করা হয়। মাঝে মধ্যে বিচিং পাউডার আমদানি করে থাকে আমদানিকারকরা। গত ৪ ও ৬ জুলাই আমিন ট্রেড এজেন্টসী মাধ্যমে বিচিং পাউডার আমদানি করা হয়। কিন্তু আমরা খোজ নিয়ে জেনেছি ১৩ জুলাই আমদানিকৃত বিøচিং পাউডার বোঝাইকৃত ৩টি ট্রাক ভাতরের মহদিপুর বর্ডারে ১৩/১৪দিন অবস্থান করছিলো। যা তাপ নিয়ন্ত্রন বিপর্যস্ত হয়। ভারতের মহদিপুরে খোলা স্থানে প্রচন্ড তাপদহে উত্তাপ্ত এবং ট্রাকের ইঞ্জিলের তাপহদের ফলে পানামায় এসে বিকেলে ৩টায় দিকে একটি ট্রাকে অগ্নিপাত ঘটে। পরে রাতে পানামার বাইরে গণকবরের পাশে রাখা অরপ একটি ট্রাকে একইভাবে আগুন লাগে। তবে, একটি কুচক্র মহল গুজব ছড়ানো চেষ্টা করছে। তাই সোনামসজিদ স্থল শুল্ক স্টেশন, বিজিবি, পানামা, সিঅ্যান্ডএফ ও আমদানিকরকদের যৌথ সমন্বয়ে বিচিং পাউডারের নমুন সংগ্রহ করে বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণাগার রাজশাহীতে পাঠানো হয়েছে। সংগ্রহকৃত নমুনার পরীক্ষার রিপোর্ট আসলে প্রকৃত ঘটনা উদঘাটিত হবে।


এদিকে, বিচিং পাউডার আমদানিকৃত সিঅ্যাএফ প্রতিষ্ঠান জাহাঙ্গীর নগর সিন্ডিকেটের পিিরচালক ইসতিয়াক আহমেদ নবাব বলেন, বিচিং পাউডাক বিষ্ফোরণের এটি নতুন ঘটনা নয়। তবে, সোনামসজিদ স্থলবন্দরে প্রথম। এর আগে বেনাপল বন্দরে ৬টি ট্রাকে আগুন লেগেছে। তিনি অভিযোগ করে আরো জানান, ব্যবসায়ী ও পূর্ব শত্রতার জেরে ২০১৪ সালের ২৪ অক্টোবর শিবগঞ্জ স্টেডিয়ামের কাছে পরিকল্পিতভাবে আমার পিতা মনিরুল ইসলামকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এরপর দীর্ঘদিন আদালতে বিচারকার্য শেষে ২০১৯ সালের ২০ জুন এ হত্যা মামলার রায় হয়েছে। রায়ে ৯ জনের মৃত্যুদন্ড, ২ জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ডাদেশ দেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক। তবে, উচ্চ আদালতে আসামীরা আপিল করার জন্য রায় কার্যকর আদেশ অপেক্ষামান। কিন্তু মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত আসামি সিরাজুল ইসলাম মুন্সির ভাতিজা ইসমাইল হোসেন (যার ফেইসুবক আইডি ইসমাইল সরদার) আমাদেরকে পারিবারিকভাবে হেয়পন্ন করতে ও স্থলবন্দরের ব্যবসাকে ক্ষতি করতে বিচিং পাউডারকে গানপাউডার বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করে গুজব ছড়িয়েছেন। যা প্রকৃত ঘটনা না জেনে, না বুঝে এবং কেমিক্যাল ল্যাবে পরীক্ষা না যে ব্যক্তি এই গুজবটি ছড়িয়েছেন তা বর্তমান সরকারের রাজস্ব আহরণ ও বন্দরে ব্যবসায়ভাবে ক্ষতি করতেই মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন তথ্য ফেইসবুক প্রচার করেছেন।


এব্যাপারে সোনামসজিদ সিঅ্যাএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মোঃ ইসমাইল হোসেন বলেন, ভারতীয় পণ্যবাহী ট্রাকে আগুন লাগানোর কথা শুনে দূর্ঘটনা এলাকায় যাই। সেই গিয়ে জানতে পারি বিচিং পাউডারের অতিরিক্ত রোদের তাপে উত্তাপ্ত হওয়ার কারণে আগুনের সূত্রপাত হয়। কিন্তু এই বন্দরের ব্যবসায়ী ও সরকারের রাজস্ব ক্ষতিগ্রস্থ করতে সিঅ্যাএফ’র সাবেক সভাপতি হারুন অর রশিদের নেতৃত্বে তাঁর সাথে সবসময় থাকা ইসমাইল নামে প্রায় ২০/২২ বছরের একটি ছেলে (যার ফেইসুবক আইডি ইসমাইল সরদার) বিচিং পাউডারকে গানপাউডার বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করে গুজব ছড়িয়েছে। সে প্রকৃত ঘটনা না জেনে, না বুঝে সাবেক সভাপতি হারুন অর রশিদের কথায় বর্তমান সরকারের রাজস্ব আহরণ ও বন্দরে ব্যবসায়ভাবে ক্ষতি করতেই মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন তথ্য ফেইসবুক প্রচার করেছেন। পরবর্তীতে সাবেক সভাপতি হারুন সাহেবও কমেন্টের প্রেক্ষিতে ওই স্ট্যাটাসে “ধন্যবাদ ভাতিজা এতো সুন্দর তথ্য দেওয়ার জন্য” বলে মন্তব্য করেন। এতেই বুঝা যায় তিনি বন্দরের উন্নয়ন না করে বন্দরের ক্ষতি করতে গুজব ছড়াচ্ছেন।


এব্যাপারে অভিযুক্ত ইসমাইল হোসেনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমি কোন ব্যবসায়ী না, আমি একজন সাধারণ মানুষ। বন্দরে ট্রাকে আগুন লাগানো দেখে একজন মানুষ হিসেবে খারাপ লেগেছে। তাই এই বিষয়টি জনগণের কাছে জানতে ওই স্ট্যাটাস টা দিয়েছি। এতে আমাকে কেউ স্ট্যাটাস দিতে বলেনি।
অন্যদিকে, সি অ্যা এফ’র সাবেক সভাপতি হারুন অর রশিদের সাথে সরাসরি এবং মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোন কখা না বলে বাইরে এবং ব্যস্ত আছি বলে বিষয়টি এড়িয়ে যান।


এ্যাবাপারে সোনামসজিদ স্থল শুল্ক স্টেশনের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা প্রশান্ত কুমার বিশ্বশর্ম্মা জানান, গত ১৩ জুলাই পানামার অভ্যন্তরে ভারতীয় পণ্যবাহী ট্রাকে আগ্নিপাতের ঘটনার পর আমরা বিষয়টি বিভিন্ন তদন্ত করছি। ভারতীয় বিচিং পাউডার বোঝাই ট্রাকে আগুন লাগানো এটি নতুন কিছু না, তবে এই বন্দর নতুন। এর আগে বেনাপল ও চট্টগ্রাম বন্দরেও অগ্নিকার ঘটনা ঘটেছে। তবে কি কারণে এই বন্দরে অগ্নিপাত হয়েছে তা এখনো আমরা স্পস্ট নয়। আমরা সোনামসজিদ স্থল শুল্ক স্টেশন, বিজিবি, পানামা, সিঅ্যান্ডএফ ও আমদানিকরকদের যৌথ সমন্বয়ে বিচিং পাউডারের নমুন সংগ্রহ করে বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণাগার রাজশাহীতে পাঠেছি। নমুনার পরীক্ষার রিপোর্ট আসলে প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে। এছাড়া আমাদের পক্ষ থেকেও একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটি তদন্ত করছেন। তদন্তের স্বার্থে কিছু বলা সম্ভব নয়।


এদিকে, শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আবুল হায়াত জানান, সোনামসজিদ স্থলবন্দরের পানামা পোর্ট লিংক লিমিটেডের অভ্যন্তরে ভারতীয় পণ্যবাহী ট্রাকে অগ্নিকার ঘটনায় জেলা পর্যায়ে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট দেবেন্দ্র নাথ উরাঁও এর নেতৃত্বে ১০জন বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত চলমান রয়েছে। তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কিছ ু বলা যাবে না।###

পোস্টটি শেয়ার কারুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিজ্ঞাপনঃ

রাজনীতি

অপরাধ ও দুর্নীতি

© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed By Mak Institute of Design |