ডেইলি তালাশ
ডেইলি তালাশ এ আপনাদের স্বাগতম। সময়ের সাথে সবার আগে বস্তুনিষ্ঠ সত্য সংবাদ পেতে আমাদের ওয়েভ-সাইট সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।
নালিতাবাড়ীতে পথে পথে গরু জবাই, দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ মানুষ

নালিতাবাড়ীতে পথে পথে গরু জবাই, দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ মানুষ

সাইফুল ইসলাম,নালিতাবাড়ী (শেরপুর) প্রতিনিধি >>> মাংস বিক্রির জন্য সরকারী ভাবে সেড ঘর থাকার পরও শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে বাজারের রাস্তার পাশে প্রতিদিন অহরহ গরু জবাই হচ্ছে। দিনের পর দিন গরুর নাড়িভুড়ি রক্ত পড়ে থেকে পরিবেশ দ‚ষিত হলেও নজর পড়েনি স্থানীয় প্রশাসনের।
অথচ সরকারি নিয়ম অনুযায়ী পশু জবাইয়ের আগে একজন পশু চিকিৎসক পশুটির ডাক্তারি পরীক্ষা করাবেন। পশুটি সম্প‚র্ণ রোগমুক্ত ও খাওয়ার উপযোগী বিবেচিত হলে সরকার নির্ধারিত কসাইখানায় জবাইয়ের পর মাংসের উপর সীল মেরে তা বাজার বিক্রির অনুমতি দিবেন। পশু জবাই ও মাংস কাটার যাবতীয় সরঞ্জাম ব্যবহারের আগে জীবাণুমুক্ত করা, খোলা মাংস বিক্রি না করা, মাংসের দোকানে প্রয়োজনীয় পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখার বিধান রয়েছে। মাংস বিক্রির জন্য গরু জবাইয়ের সরকারি যতো নিয়মকানুন থাকুকনা কেন, এসবের কোন কিছুর তোয়াক্কা নেই নালিতাবাড়ীতে।
নালিতাবাড়ীতে দুরন্ত ভোগাই নদী পৌরশহরকে দু ভাগে ভাগ করা হয়েছে। ৭,৮ ও ৯ এই তিনটি ওয়ার্ড নিয়ে নদীর পূর্ব পাশে এবং ১-৬ পর্যন্ত নদীর পশ্চিম পাশে অবস্থান। ভোগাই নদীর উপর একটি ব্রীজ রয়েছে যা দুপাশের মানুষের চলাচলের জন্য। ব্রীজ থেকে নালিতাবাড়ী বাজারে নামার সময় রাস্তার পাশে সড়ক ও জনপথের যায়গা দখল করে টিনের চালা দিয়ে সেখানে প্রতিদিন গরু জবাই ও মাংস বিক্রি করা হচ্ছে। প্রতিদিন সেই রাস্তা দিয়ে হাজার হাজার জনগণ দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ হয়েও চলাচল করছে। অথচ কাঁচা বাজার ও মাংস বিক্রির জন্য (নালিতাবাড়ী বাজারে)৭ নং ওয়ার্ডে সরকারী ভাবে নির্দিষ্ট দুটি সেড নির্মাণ করা হয়েছে। সেই সেডে দুএকটা কাঁচা বাজারের দোকান ছাড়া সম্পুর্ণ সেড ফাকা রয়েছে। আজ পর্যন্ত ওই মাংসের উপর সীল দেখতে পাওয়া যায়নি। বিক্রেতাদের প্রশ্ন করা হলে বলেন তারা গরু কিনে এনে পশু হাসপাতালে দেখিয়ে নিয়ে আসেন।
গত ২৩ মে উপজেলা নির্বাহী অফিসার হেলেনা পারভীন ভ্রাম্যমান আদালতে ছয়জন ব্যাবসায়ীকে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন।
ব্যাবসায়ীগন বলেন,এ যায়গা ছাড়া অন্য যায়গায় বেশী মাংস বিক্রি হয় না। তাই আমরা এখানেই মাংস বিক্রি করছি। গরু জবাইয়ের বর্জ্য আমরা পাশের পুকুরে ফেলে দেই। সেখান থেকে হয়ত দুর্গন্ধ আসে।
৭ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোরাদ হোসেন টেটন বলেন, রাস্তার পাশে তাদের মাংস বিক্রি ও গরু জবাই করা নিষেধ রয়েছে। তবে খুব শীঘ্রই তাদের সরকারী সেডে নিয়ে যাওয়ার ব্যাবস্থা করা হবে।
নালিতাবাড়ী পৌরসভার সচিব মো.জাহিদুল আলম বলেন,খুব শীঘ্রই ওদের নির্দিষ্ট স্থানে স্থানান্তরিত করা হবে। আর আমাদের পৌরসভায় কসাই খানা পরিদর্শক ও সেনেটারী ইন্সপেক্টও পদ দুটি শুণ্য না থাকায় গরুর মান নিয়ন্ত্রনের জন্য জবাই ও মাংসে সিল মারতে পরছিনা। ওই দুটি শুণ্য পদ পদ গুলো পুরন হলেই সার্বিক দেখার আওতায় আসবে।
উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা মো.মতিউর রহমান বলেন,আজ পর্যন্ত গরু জবাইয়ের আগে তারা আমাদের কাছে আসেননি বা কোন ছাড় পত্র নেননি। তারা তাদের মত করে গরু জবাই করে মাংস বিক্রি করছে। নির্ধারিত স্থান ছাড়া এভাবে রাস্তার উপরে পশু জবাই করা হলে পরিবেশ নষ্ট হয় এবং তা আইনত অপরাধ। এ কারণে সম্প্রতি একটা মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন ইউএনও।###
নালিতাবাড়ীতে পথে পথে গরু জবাই, দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ মানুষ
সাইফুল ইসলাম,নালিতাবাড়ী (শেরপুর) প্রতিনিধি >>> মাংস বিক্রির জন্য সরকারী ভাবে সেড ঘর থাকার পরও শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে বাজারের রাস্তার পাশে প্রতিদিন অহরহ গরু জবাই হচ্ছে। দিনের পর দিন গরুর নাড়িভুড়ি রক্ত পড়ে থেকে পরিবেশ দ‚ষিত হলেও নজর পড়েনি স্থানীয় প্রশাসনের।
অথচ সরকারি নিয়ম অনুযায়ী পশু জবাইয়ের আগে একজন পশু চিকিৎসক পশুটির ডাক্তারি পরীক্ষা করাবেন। পশুটি সম্প‚র্ণ রোগমুক্ত ও খাওয়ার উপযোগী বিবেচিত হলে সরকার নির্ধারিত কসাইখানায় জবাইয়ের পর মাংসের উপর সীল মেরে তা বাজার বিক্রির অনুমতি দিবেন। পশু জবাই ও মাংস কাটার যাবতীয় সরঞ্জাম ব্যবহারের আগে জীবাণুমুক্ত করা, খোলা মাংস বিক্রি না করা, মাংসের দোকানে প্রয়োজনীয় পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখার বিধান রয়েছে। মাংস বিক্রির জন্য গরু জবাইয়ের সরকারি যতো নিয়মকানুন থাকুকনা কেন, এসবের কোন কিছুর তোয়াক্কা নেই নালিতাবাড়ীতে।
নালিতাবাড়ীতে দুরন্ত ভোগাই নদী পৌরশহরকে দু ভাগে ভাগ করা হয়েছে। ৭,৮ ও ৯ এই তিনটি ওয়ার্ড নিয়ে নদীর পূর্ব পাশে এবং ১-৬ পর্যন্ত নদীর পশ্চিম পাশে অবস্থান। ভোগাই নদীর উপর একটি ব্রীজ রয়েছে যা দুপাশের মানুষের চলাচলের জন্য। ব্রীজ থেকে নালিতাবাড়ী বাজারে নামার সময় রাস্তার পাশে সড়ক ও জনপথের যায়গা দখল করে টিনের চালা দিয়ে সেখানে প্রতিদিন গরু জবাই ও মাংস বিক্রি করা হচ্ছে। প্রতিদিন সেই রাস্তা দিয়ে হাজার হাজার জনগণ দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ হয়েও চলাচল করছে। অথচ কাঁচা বাজার ও মাংস বিক্রির জন্য (নালিতাবাড়ী বাজারে)৭ নং ওয়ার্ডে সরকারী ভাবে নির্দিষ্ট দুটি সেড নির্মাণ করা হয়েছে। সেই সেডে দুএকটা কাঁচা বাজারের দোকান ছাড়া সম্পুর্ণ সেড ফাকা রয়েছে। আজ পর্যন্ত ওই মাংসের উপর সীল দেখতে পাওয়া যায়নি। বিক্রেতাদের প্রশ্ন করা হলে বলেন তারা গরু কিনে এনে পশু হাসপাতালে দেখিয়ে নিয়ে আসেন।
গত ২৩ মে উপজেলা নির্বাহী অফিসার হেলেনা পারভীন ভ্রাম্যমান আদালতে ছয়জন ব্যাবসায়ীকে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন।
ব্যাবসায়ীগন বলেন,এ যায়গা ছাড়া অন্য যায়গায় বেশী মাংস বিক্রি হয় না। তাই আমরা এখানেই মাংস বিক্রি করছি। গরু জবাইয়ের বর্জ্য আমরা পাশের পুকুরে ফেলে দেই। সেখান থেকে হয়ত দুর্গন্ধ আসে।
৭ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোরাদ হোসেন টেটন বলেন, রাস্তার পাশে তাদের মাংস বিক্রি ও গরু জবাই করা নিষেধ রয়েছে। তবে খুব শীঘ্রই তাদের সরকারী সেডে নিয়ে যাওয়ার ব্যাবস্থা করা হবে।
নালিতাবাড়ী পৌরসভার সচিব মো.জাহিদুল আলম বলেন,খুব শীঘ্রই ওদের নির্দিষ্ট স্থানে স্থানান্তরিত করা হবে। আর আমাদের পৌরসভায় কসাই খানা পরিদর্শক ও সেনেটারী ইন্সপেক্টও পদ দুটি শুণ্য না থাকায় গরুর মান নিয়ন্ত্রনের জন্য জবাই ও মাংসে সিল মারতে পরছিনা। ওই দুটি শুণ্য পদ পদ গুলো পুরন হলেই সার্বিক দেখার আওতায় আসবে।
উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা মো.মতিউর রহমান বলেন,আজ পর্যন্ত গরু জবাইয়ের আগে তারা আমাদের কাছে আসেননি বা কোন ছাড় পত্র নেননি। তারা তাদের মত করে গরু জবাই করে মাংস বিক্রি করছে। নির্ধারিত স্থান ছাড়া এভাবে রাস্তার উপরে পশু জবাই করা হলে পরিবেশ নষ্ট হয় এবং তা আইনত অপরাধ। এ কারণে সম্প্রতি একটা মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন ইউএনও।###

পোস্টটি শেয়ার কারুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিজ্ঞাপনঃ

রাজনীতি

অপরাধ ও দুর্নীতি

© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed By Mak Institute of Design |