ডেইলি তালাশ
ডেইলি তালাশ এ আপনাদের স্বাগতম। সময়ের সাথে সবার আগে বস্তুনিষ্ঠ সত্য সংবাদ পেতে আমাদের ওয়েভ-সাইট সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।
শিরোনামঃ
ময়মনসিংহে জেলা ও মহানগর আ.লীগের সম্মেলন শুরু কলাপাড়ায় সম্ভাবনাময় পর্যটন স্পট চর হেয়ার ও সোনারচর ঠাকুরগাঁও জগদল সীমান্তে দুই বাংলার হাজারো মানুষের দিনব্যাপী মিলন মেলা কোর্ট এর আদেশ লঙ্গন করতে গেলে আ’লীগ রাস্তায় দারাবে !!গোলাপ এমপি র‌্যাব-৩ এর অভিযানে সৌদি আরবে মানব পাচারকারী চক্রের মূলহোতা গ্রেফতার শিশুদের পাইলসের লক্ষণ, অস্ত্রোপচারে ঝুঁকি কতটা? হেরেও নকআউটে স্পেন, চারবারের চ্যাম্পিয়ন জার্মানির বিদায় !!স্মরণীয় জয়ে গ্রুপসেরা জাপান ফরিদপুরে ককটেল বিস্ফোরণ, বিএনপির ৮ নেতাকর্মী গ্রেপ্তার বাঙালির মাছ ভাজি’ নিয়ে বিতর্ক, ক্ষমা চাইলেন পরেশ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের সম্মেলন কাল, নেতৃত্ব যাচ্ছে ওবায়দুল কাদের হাতে?
দুমকির দক্ষিণ মুরাদিয়া মৌজার>৩০০একর জমি জবর দখলের অভিযোগ

দুমকির দক্ষিণ মুরাদিয়া মৌজার>৩০০একর জমি জবর দখলের অভিযোগ

মোঃ এবাদুল হক, দুমকি (পটুয়াখালী) প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর দুমকি উপজেলার ৩নং মুরাদিয়া ইউনিয়নের জে এল নং ৩০ দক্ষিণ মুরাদিয়া মৌজার বন্দোবস্ত ভূমিহীন প্রাপ্তিদের চাষাবাদে বাধা সৃষ্টিকারী কুড়ি পাইকা মৌজার ভূমিদস্যু কর্তৃক প্রায় ৩০০ একর জমি জবর দখলের পাঁয় তারার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ বিষয়ে বন্দোবস্ত প্রাপ্ত ভূমিহীন মোঃ মকবুল শিকদার দুমকি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে একটি অভিযোগ পত্র দাখিল করেছেন। অভিযোগ সূত্র ও সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কুড়ি পাইকা ও মুরাদিয়া মৌজার মধ্যবর্তী লোহালিয়া নদী অবস্থিত। আরএস জরিপে নদীটি মুরাদিয়া মৌজাভুক্ত। কুড়ি পাইকা মৌজার সাথে নদী পয়স্তি হয়েছে। পটুয়াখালী ও দুমকি একই উপজেলা থাকাকালীন সময়ে ১৯৭২-৭৩ সালে ২৯ টি বন্দোবস্ত কেসে কুড়ি পাইকা মৌজা হিসেবে বন্দোবস্ত প্রদান করে। পরবর্তীতে ১৯৯৮-৯৯ সালে আরো কিছু জমি পয়স্তি হওয়ায় প্রায় ৩২ একর জমি বন্দোবস্ত দেয়।

পরবর্তীতে ৬ দাগে প্রায় ৫ একর জমিতে আবাসন প্রকল্প বাস্তবায়ন করে ৬টি ব্যারাকে ৬০ টি পরিবারকে পূর্ণবাসন করা হয়। দক্ষিণ মুরাদিয়া মৌজায় দিয়ারা জরিপ হওয়ায় ১৯৭২-৭৩ তথা ১৯৯৮-৯৯ সালে বন্দোবস্ত তথা আবাসন প্রকল্প সহ ২৩৪ টি দাগ দক্ষিণ মুরাদিয়া মৌজা হিসেবে ম্যাপ রেকর্ড ভুক্ত করা হয়। উপরোক্ত জমি বন্দোবস্তের জমির পরে উপরোক্ত জমির মুখসায় প্রায় ২শ একর জমি পয়স্তি হয়েছে। ইহার মধ্যে প্রায় ১শ একর জমি মুরাদিয়া মৌজা হতে দক্ষিণ মুরাদিয়া ভূমিহীন কৃষকদের মাঝে বন্দোবস্ত প্রদান করা হয়েছে।

দুমকি উপজেলা হতে বন্দোবস্তকৃত জমি ভূমিহীনদেরকে সার্ভেয়ার কর্তৃক বুঝাইয়া দেওয়া হয়েছে। দুমকি উপজেলার ভূমিহীনগন উক্ত জমি চাষাবাদ করতে গেলে কুড়ি পাইকা এলাকার ভূমিদস্যু আঃ করিম মোল্লার ছেলে বাবুল মোল্লা ও জাকির মোল্লার নেতৃত্বে লাল খানের ছেলে মান্নান খান, মফেজ হাওলাদার কুট্টির ছেলে সালাম হাওলাদার ও আলম হাওলাদার, কাসেম ফকিরের ছেলে মন্নান ফকির, দুলাল খানের ছেলে মাসুদ খান, আফাজ উদ্দিন এর ছেলে জালাল, জালালের ছেলে জামাল এবং এদের সাথে আবাসন প্রকল্পের বাসিন্দারা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে বাধা সৃষ্টি করে এবং কয়েক বছর পর্যন্ত দক্ষিণ মুরাদিয়া মৌজার ভূমিহীনদের চাষাবাদকৃত জমির ধান জোরপূর্বক কাটে নিয়ে যায়। এবং দক্ষিণ মুরাদিয়া ভূমিহীন চাষীদের বন্দোবস্ত প্রাপ্ত জমিতে তরমুজ চাষের জন্য ভেরীবাদ দেওয়ার পায়তারা চালাচ্ছে।

দুমকি উপজেলা হতে বন্দোবস্ত প্রাপ্ত ভূমিহীন মোঃ আলমগীর প্যাদা বলেন, কুড়িপাইকা ওয়াপদা ভেরীবাদের ঘর পাশে আমাদের দুমকি উপজেলার দক্ষিন মুরাদিয়া মৌজার পিলার। দুমকি সাব রেজিস্ট্রি অফিস থেকে দলিল রেজিট্রি করে তারা কুড়ি পাইকার লোকজন ওয়াপদার পাশে একটি মসজিদ নির্মাণ করেছে। বন্দোবস্ত প্রাপ্ত ভূমিহীন মোঃ হানিফ নেগাবান বলেন, আমরা আমাদের বন্দোবস্ত প্রাপ্ত জমিতে প্রতিবছর আবাদ করে ধানের বীজ রোপন করে আসি, ধান পাকলে কুড়ি পাইকার ভূমিদস্যুরা ধান কেটে নিয়ে যায়। আমাদের রোপন কৃত জমিতে রাতের আধারে গরু মহিষ ছেরে দিয়ে রোপনকৃত ফসল নস্ট করে।

তারা আমাদের বন্দোবস্ত প্রাপ্ত জমিতে ভেরীবাদ দিয়ে তরমুজ চাষের পায়তারা চালাচ্ছে। তারা যেন আমাদের বন্দোবস্ত প্রাপ্ত জমিতে ভেরিবার দিতে না পারে সেজন্য প্রশাসনের কাছে তদন্ত-পূর্বক ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানাচ্ছি।

দুমকি উপজেলা নির্বাহী অফিসার আল ইমরান বলেন, একটি অভিযোগ পেয়েছি দুমকী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বলেছি।

পোস্টটি শেয়ার কারুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিজ্ঞাপনঃ

রাজনীতি

অপরাধ ও দুর্নীতি

© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed By Mak Institute of Design |