ডেইলি তালাশ
ডেইলি তালাশ এ আপনাদের স্বাগতম। সময়ের সাথে সবার আগে বস্তুনিষ্ঠ সত্য সংবাদ পেতে আমাদের ওয়েভ-সাইট সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।
শিরোনামঃ
পাঁচবিবিতে জীবনের নিরাপত্তার দাবীতে সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত মাদারীপুরের রাজৈরে জটিল রোগে আক্রান্তদের মাঝে অনুদানের চেক বিতরণ কালকিনি ইউএনওকে কবিতার সৌজন্য কপি উপহার দিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মালেকুজ্জামান শিবগঞ্জে ১৫টি ইউপিতে ভিজিএফ’র চাল বিতরণ পাঁচবিবিতে ইয়াবা ট্যাবলেটসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক পাঁচবিবিতে পাটের বাম্পার ফলন হওয়ার সম্ভাবনা তারাগঞ্জে গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণের জন্য ৫৬ লক্ষ টাকা ও ২০৭ মেট্রিক টন গম ও চাল ভাগ-বাটোয়ারা হেনোলাক্স গ্রুপের এমডি ও পরিচালক গ্রেপ্তার বিধবা নয়, তবুও পাচ্ছেন বিধবা ভাতা :>শিবগঞ্জে কার্ড বিতরনে অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগ টুঙ্গিপাড়ায় দুঃস্থ ও দরিদ্রদের মাঝে সেনাপ্রধানের ঈদ উপহার বিতরণ
ডারবান টেস্টে ওপেনিংয়ে তামিমের সঙ্গী জয়

ডারবান টেস্টে ওপেনিংয়ে তামিমের সঙ্গী জয়

টেস্ট দলে তামিম ইকবাল ফেরায় স্বস্তিতে থাকার কথা জানিয়েছিলেন বাংলাদেশ দলের টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন। বলেছিলেন তার ফেরা ওপেনিংয়ে শক্তি বাড়বে। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ডারবানে প্রথম টেস্টে ওপেনিংয়ে তামিমের সঙ্গে দেখা যাবে মাহমুদুল হাসান জয়কে। কপাল পুড়তে পারে সাদমান ইসলামের।

সিরিজ শুরুর আগে বুধবার (৩০ মার্চ) বিকেলে গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে অধিনায়ক মুমিনুল হক এই কথা জানান। ওপেনিং জুটি নিয়ে এক প্রশ্নে তার উত্তর, ‘ওপেনিং পার্টনার তামিম ইকবাল আর জয় হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।’

তামিম সবশেষ টেস্টে খেলেছিলেন ২০২১ সালের এপ্রিলে শ্রীলঙ্কায়। তারপর বাংলাদেশ আরো ৫টি টেস্ট খেলে, এর মধ্যে নিউ জিল্যান্ডে জয় নিয়ে ইতিহাস গড়ে।

বৃহস্পতিবার (৩১ মার্চ) ডারবানের কিংসমিডে দক্ষিণ আফ্রিকার মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টায় খেলাটি শুরু হবে। 

এই ৫ টেস্টেই ওপেনিং করেছেন সাদমান ইসলাম, কিন্তু এর মধ্যে দুটি করে টেস্টে তার সঙ্গী ছিলেন সাইফ হাসান ও জয় এবং অন্য টেস্টে মোহাম্মদ নাঈম শেখ। 

অফ ফর্মের কারণে দল থেকে ছিটকে গেছেন সাইফ। সবশেষ তিনি পাকিস্তান সিরিজে ছিলেন। মোহাম্মদ নাঈমের হালও তাই। নিউ জিল্যান্ড সিরিজে দলে ডাক পেয়েছিলেন। দ্বিতীয় টেস্টে জয়ের ইনজুরির কারণে জায়গা পান একাদশেও। কিন্তু ব্যাট হাতে ছিলেন ব্যর্থ। অনুমিতভাবেই জায়গা হারান দল থেকে। 

পাকিস্তানের বিপক্ষে ঢাকা টেস্টে অভিষেক হওয়া জয় উতরে গেছেন নিউ জিল্যান্ডে ঐতিহাসিক টেস্ট জয়ের ম্যাচে দারুণ এক ইনিংস খেলে। তিনি ৭৮ রান করেছিলেন। এরপর ইনজুরিতে পড়ে দ্বিতীয় টেস্টে খেলতে পারেননি। এখন ফিট থাকায় তামিমের সঙ্গী হিসেবে তার ওপরই ভরসা টিম ম্যানেজমেন্টের। 

সাদমানের ব্যাটও কথা বলছে না ঠিকঠাক। সবশেষ ৪ টেস্টে তার ব্যাটে নেই কোনো ফিফটিও। সর্বোচ্চ আসে ২২ রান। সর্বমোট ৭৩ রান। একাদশে তার সুযোগ না পাওয়াটার পেছনে রানখরাই বড় কারণ। 

ইনজুরির কারণে এ কয়টি ম্যাচ তামিমকে দেখা যায়নি সাদা পোশাকে। তার ফেরায় স্বস্তি প্রকাশ করে টিম ডিরেক্টর সুজন বলেছেন, ‘তামিমের ফেরা অনেক বড় ব্যাপার। এরকম অভিজ্ঞ ও সিনিয়র খেলোয়াড় দলে থাকা সবসময়ই ভালো। তামিম রান করলে আমাদের জন্য সহজ হয়ে যায়। আমি আশা করি তামিমের অভিজ্ঞতা কাজে লাগাবে।’

দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংলাদেশ ৬টি টেস্ট খেলে। তার মধ্যে তামিম একটি বাদে সবগুলোতেই ছিলেন একাদশে। দেশটিতে ২৩.১০ গড়ে করেছেন ২৩১ রান।

পোস্টটি শেয়ার কারুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিজ্ঞাপনঃ

রাজনীতি

অপরাধ ও দুর্নীতি

© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed By Mak Institute of Design |